জানুয়ারী / ২০ / ২০২২ ০১:০৪ অপরাহ্ন

রিফাত বিন জামাল

জানুয়ারী / ১৩ / ২০২২
০১:৪৪ অপরাহ্ন

আপডেট : জানুয়ারী / ২০ / ২০২২
০১:০৪ অপরাহ্ন

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ দিয়েই শুরু হলো আরএসএল



62

Shares

কাল বৃষ্টি এসেছিল। আজ তেমন আভাস ছিল না। তবে রারাই সুপার লিগের মাঠে ছক্কা বৃষ্টির আভাস ছিল জোরালো। যে রাজুর ব্যাটেই তা দেখার অপেক্ষায় ছিল দর্শকেরা, সেই রাজু ম্যাচে নায়ক বনলেন ঠিকই। তবে ভিন্ন এক ভূমিকায়!  শেষ দুই ওভারে ফরেইন ফাইটার্সের প্রয়োজন ২৮ রান। সাজুর ব্যাট থেকে বোলার শহিদের দুটি বল গেল সীমানা ছাড়িয়ে। জয়নালের ব্যাটে আরেকটি ছয়। শহিদের সে ওভারে সবমিলিয়ে ২০ রান এলে শেষ ওভারে লায়ন্স ইউনাইটেডের সম্বল ৮ রান। এমনিতেই হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ বেরিয়ে যাওয়ায় অধিনায়কের মাথায় চিন্তার ভাজ স্পষ্ট, তার উপর বোলারদের করুণ দশা তাকে ফেলে দিয়েছে বিষম চাপে।No description available.

ম্যাচে এর আগে কোন বল না করা রাজুর উপরই শেষমেশ ভরসা রাখলেন লায়ন্স কাপ্তান তাহের। বিশ্বাসের প্রতিদান দেখিয়ে রাজু প্রথম তিন বলে দুই রান দিয়েই ফিরিয়ে দিলেন সাজুকেও। এরপর যদিও করে ফেললেন টানা দুটি ওয়াইড। অবশ্য শেষ দুই বলে যখন দরকার চার রান, তখন প্রথমটিতে এক রানের বেশি না দিয়ে এবং শেষ বলে উইকেট হাসিল করে তিনিই শেষ পর্যন্ত হাসলেন বিজয়ীর হাসি।

রাজুর ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারে এমন বোলিংয়ের সাথে অবদান ছিল ব্যাটিংয়েরও! পূর্ব সিলেটের অন্যতম সেরা এক বোলার ও একজন ব্যাটার একই দলে। তবে এবার ইনজুরির কারণে বোলার তাহের বনে গেছেন ব্যাটার। ধুড়ুমধাড়ড়কা ব্যাটিংই যার মূল মন্ত্র। রাজুর সাথে তাহেরের ব্যাটিংই ছক্কা বৃষ্টির আভাস দেখার কারণ। তবে দেখার বিষয় ছিল, তাহেরের সেই ব্যাটিংয়ের স্থায়িত্ব কতক্ষণ!

ওপেনিংয়ে নেমে তাহের অবশ্য গতকাল টিকে ছিলেন অনেকক্ষণ। ব্যাট হাতে তান্ডব চালিয়ে মূহুর্তেই ত্রিশের ঘর পেরিয়ে গেছেন, কিন্ত ইনিংসটা তাঁর ৪২ রানের বড় করবার আগেই আউট হয়েছেন। রাজুও ঝড় তুলেছেন সমানতালে, করেছেন ৩৮ রান। অপর প্রান্তে তাহেরের সাথে রাজু যখন ব্যাটিং করছিলেন, তখন সেটি জকিগঞ্জের থানাবাজারের পূর্ব মাঠে থাকা দর্শকদের জন্য ছিল বেশ উপভোগ্য সময়! সময়টা হয়তো ঠিক ততটাই কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছিল ফাইটার্সের খেলোয়াড়দের জন্যে।

তবে রাজু-তাহের ঝড়ের পর শুরু হয়েছে উইকেটের মিছিল। একের পর এক উইকেট খুইয়েছে লায়ন্স। রানের চাকাও যদিও থামেনি সেই সাথে, শেষমেশ তাই তাঁরা ১২২ রানের বড় পুঁজি নিয়েই নামতে পেরেছিল ফিল্ডিংয়ে। ফিল্ডিংয়ে নেমে লায়ন্সের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান জিল্লু, মুন্না ও আফজলকে দ্রুত প্যাভিলিয়নের পথ ধরিয়ে লায়ন্স জয়ের দিকেই অগ্রসর হচ্ছিলো। কিন্ত সময়ের সাথে সাথে তাদের হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন সাজু। এক প্রান্ত আগলে রাখা বাঁহাতি সাজুর সঙ্গে অপর প্রান্তে রেদওয়ান(১৮), আরিফ(১৯), হুসামরাও (১০)খেলে গেছেন দ্রুতগতির ক্যামিও ইনিংস। শেষমেশ তাই সমীকরণ চলে এসেছিল ১২ বলে ২৮ রানে। সেটি আরও সহজ হয়ে গিয়েছিল সাজুর দুই ছক্কায়। কিন্ত সেই সাজুই এরপর ব্যর্থ হয়ে ৩২ রানে আউট হলে ফরেইন ফাইটার্সের ভাগ্যে জুটেছে ২ রানের হার।

মারুতি বলে হওয়া রারাই সুপার লিগের এবারের আসরের শুরুটাই হলো শ্বাসরুদ্ধকর এক ম্যাচ দিয়ে। যে ম্যাচে একেবারে শেষ বল পর্যন্তই টিকে ছিল উত্তেজনা। জকিগঞ্জের সেরা ক্রিকেট লিগ কেন বলা হয় এই রারাই সুপার লিগকে, সেটির প্রমাণ মিললো প্রথম ম্যাচেই।

এই লিগে এই প্রথম ডানহাতি ব্যাটার রাজুর আগমন। সেই রাজুর মা মারা গেছেন কিছুদিন হলো। ক্রিকেটটা আগেও ভালোবেসেই খেলতেন, এবার সেটা কিছুটা ব্যাথা উপশমের কারণও হয়ে গেছে তাঁর জন্যে। মা হারানোর বেদনাটা তিনি ক্রিকেটের আনন্দে হারাতে চান যতটা পারা যায়! আর আজকের দিনে তিনি যে আনন্দ পাবেন, সেটি তাঁর জীবনেই অনন্য হয়ে থাকবে। এমন দিন যে আসে না প্রতিদিন!

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ  লায়ন্স ইউনাইটেড টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত

লায়ন্সঃ ১২২/৯, ১২ ওভার (তাহের ৪২, রাজু ৩৮, জুবেল ৩৮/৩, আফজল ১৭/২)

ফাইটার্সঃ ১২০/৯, ১২ ওভার (সাজু ৩২, আরিফ ১৯, কামরুল ১৫/৩)

ফলঃ লায়ন্স ইউনাইটেড ২ রানে জয়ী।

রিফাত বিন জামাল

জানুয়ারী / ১৩ / ২০২২
০১:৪৪ অপরাহ্ন

আপডেট : জানুয়ারী / ২০ / ২০২২
০১:০৪ অপরাহ্ন

খেলা