মে / ১৭ / ২০২২ ০২:৪৩ অপরাহ্ন

আমির হোসাইন, শাল্লা প্রতিনিধি

জানুয়ারী / ১৯ / ২০২২
১১:২৩ অপরাহ্ন

আপডেট : মে / ১৭ / ২০২২
০২:৪৩ অপরাহ্ন

শাল্লায় সাংবাদিকের উপর হামলা

থানায় মামলা



107

Shares

সুনামগঞ্জের শাল্লায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের অফিস সহায়কের হাতে এক সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ও গুরুতর আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।আহত সাংবাদিকদের নাম বাদল চন্দ্র দাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি দৈনিক জনবাণী পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত।

জানা যায় বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় শাল্লা উপজেলা সদরের ঘুঙ্গিয়ারগাঁও বাজারের নাঈমের দোকানে বসা অবস্থায় অতর্কিত এই হামলা চালায় অফিস সহায়ক সুব্রত কুমার দাস। ওই সুব্রত কুমার দাস শাল্লা উপজেলার বাহাড়া ইউনিয়নের সুখলাইন গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সুবল চন্দ্র দাসের ছেলে। হামলার বিষয়ে সুব্রত কুমার দাসের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ২/৩ জনের বিরুদ্ধে শাল্লা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন আহত সাংবাদিকদ বাদল চন্দ্র দাস।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, সাংবাদিক বাদল চন্দ্র দাসের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স অয়ন্তী এন্টারপ্রাইজ মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেনকে ইট বালুসহ বিভিন্ন মালামাল সরবরাহ করেন। সরবরাহকৃতের মালামালের ৪৭লাখ টাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাওনা রয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানের অপরিশোধিত টাকা পরিশোধের বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানা টালবাহানা করেন ইউএনও আল মুক্তাদির হোসেন।

বিষয়টি জেলা প্রশাসকসহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়। কিন্তু পাওনা টাকা না পেয়ে সর্বশেষ সিলেট বিভাগীয় কমিশনারের কাছে ইউএনও'র বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেন সাংবাদিক বাদল চন্দ্র দাস।

এই অভিযোগ দেওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষণ ক্ষিপ্ত হন বাদলের প্রতি। এরপরই অফিসের কর্মচারী সুব্রত কুমার দাসের নেতৃত্বে বাদল চন্দ্র দাসের উপর হামলা চালানো হয়। পরে উপজেলার সংবাদকর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত সাংবাদিক বাদল চন্দ্র দাসকে উদ্ধার করে শাল্লা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

আহত সাংবাদিক বাদল চন্দ্র দাস বলেন, পূর্বপরিকল্পিত ভাবে ইউএনও আল মুক্তাদিরের নির্দেশে আমার উপর হামলা চালিয়ে ইউএনও'র বিরুদ্ধে দেয়া অভিযোগের প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্রাদি আমার কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে অফিস সহায়ক সুব্রত কুমার দাস।

শাল্লা উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (বর্তমানেও এলাকায় অবস্থানরত) আল মুক্তাদির হোসেন বলেন, ঘটনার কিছুই আমি জানি না। এই ঘটনার সাথে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এদিকে ঘটনার পর থেকে অফিস সহকারী সুব্রত কুমার দাসের মোবাইল ফোনটি বন্ধ রয়েছে।

উল্লেখ্য, নানা দুর্নীতিতে অভিযুক্ত শাল্লা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদিরকে গত ১৩জানুয়ারি প্রত্যাহার করে তৎস্থলে দিরাই উপজেলার সহকারীকমিশনার(ভূমি) অরূপ রতন সিংহকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরদিকে দিনদুপুরে বাজারে মধ্যে সাংবাদিক বাদল চন্দ্র দাসের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে  ইউএনও অফিসের কর্মচারী সুব্রত কুমার দাসকে অনতিবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবী জানিয়েছেন শাল্লার  সাংবাদিকবৃন্দ।

আমির হোসাইন, শাল্লা প্রতিনিধি

জানুয়ারী / ১৯ / ২০২২
১১:২৩ অপরাহ্ন

আপডেট : মে / ১৭ / ২০২২
০২:৪৩ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জ