সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১ ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জুলাই / ২৫ / ২০২১
০৯:১৪ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১
০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

প্রচারণা শেষ প্রার্থীদের, স্থগিত চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ

সিলেট- ৩ আসনের উপনির্বাচন



39

Shares

শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে সিলেট- ৩ আসনের উপনির্বাচনের প্রচারণা। গতকাল রবিবার তিন হেভিওয়েট প্রার্থীই  তাদের নিজ নিজ নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে শেষ বারের মতো বিভিন্ন জায়গায় প্রচারণা চালিয়েছেন। নানা প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি একে অপরের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগও তুলে ধরছেন ভোটারদের কাছে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এদিকে, মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে হতে চলা সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচন স্থগিত চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন পাঁচ আইনজীবী।

আজ রবিবার (২৫ জুলাই) প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদাকে সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ আইনজীবীর পক্ষে নোটিশটি পাঠান আইনজীবী শিশির মনির।

তবে চলমান কঠোর লকডাউনের মধ্যেই আগামী ২৮ জুলাই অনুষ্ঠাতব্য সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনের কার্যক্রম বিধিনিষেধ-বহির্ভূত থাকবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। সিইসি বলেন, ‘দেশের সংবিধান অনুযায়ী শূন্য আসনে ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন দেওয়ার বিধান রয়েছে। তাই এ কঠিন সময়ের মধ্যেও নির্বাচন করতে হচ্ছে। তবে করোনায় বিধিনিষেধ মানতে সর্বোচ্চ সতর্কতা পালনে দায়িত্বশীলদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সিলেট জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় সংসদের ২৩১, সিলেট-৩ আসনের নির্বাচন উপলক্ষে শনিবার দুপুরে আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক সভায় তিনি এ কথা জানান।

এদিকে, নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে রবিবার বালাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জনসভা শুরু হলে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক ১৫ মিনিট বক্তৃতা করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন- এটি আমাদের প্রত্যাশিত নির্বাচন নয়। আমি এখানে ভাষণ দিতে আসিনি, এসেছি দু’একটি বিষয় উপস্থাপনার জন্য। আপনারা সিদ্ধান্ত নিবেন কাকে নির্বাচিত করবেন। প্রধানমন্ত্রী যাকে নৌকা দিয়েছেন সে আমার পাশে আসামির কাটগড়ায় দাঁড়িয়ে আছে। সে আপনাদের কাছে ভোট ভিক্ষা চাচ্ছে। আমি যখন মন্ত্রী ছিলাম এলাকার উন্নয়নের জন্য এই হাবিব আমার কাছে অনেকবার গিয়েছে, তার আন্তরিকতা দেখে আমি অবাক হতাম। এই এলাকার উন্নয়নে হাবিব আমাকে দক্ষিণ সুরমার কামাল বাজারে নিয়ে এসেছিল। এখানে মনোনয়ন চেয়েছিলেন ২৫ জন, আমি দেখেছি শেখ হাসিনা হাবিবকে অনেক পছন্দ করেন তিনি বললেন আমি হাবিবকে মনোনয়ন দেব। কারণ হাবিবের মধ্যে এলাকার উন্নয়নের স্বপ্ন আছে। সে শেখ হাসিনার আদরের দুলাল। আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় তাই শেখ হাসিনার প্রার্থী হাবিবকে  বিজয়ী করতে হবে।

বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোস্তাকুর রহমান মফুরের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তৃতা করেন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন। মাইক হাতে নিয়ে বললেন- বালাগঞ্জের মানুষ ভালা আছইন নি। ফেঞ্চুগঞ্জ-দক্ষিণ সুরমা ও সিলেট এলাকার মানুষ খুবই ভালা। বিশ্বের যেকোনো দেশে গেলেই তাদেরকে মিলে। বক্তৃতায় তিনি খুশ গল্প করে সবার উদ্দেশ্যে বললেন হাবিব কেমন ছেলে, হাবিব তুমি দাঁড়িয়ে একটু মুছকি হাসি দাও। তিনি বলেন উন্নয়ন চাইলে হাবিবকেই দরকার। 

বালাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বোয়ালজুড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনহার মিয়ার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন,  আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খাঁন, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যের আগে সিলেট-৩ আসনে নৌকার প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, তরুণরা আমাকে সমর্থন দিয়েছে। প্রচারণায় গিয়ে যেমন বিগত দিনের উন্নয়ন দেখেছি তেমনি মানুষের কষ্টও দেখেছি। নান্দনিক-আধুনিক সিলেট-৩ আসন উপহার দেয়ার লক্ষ্যে আমি আপনাদের স্বপ্ন পূরণ করতে এসেছি। 

বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, , ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন, বালাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ মতিন, রফিকুল আলম, জুনেদ মিয়া, উপজেলা কৃষকলীগের আহবায়ক আলাল মিয়া, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি আব্দুল আহাদ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক রজত দাস ভুলন, আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা শেখ আলী হায়দার। প্রধান অতিথি মঞ্চে উঠার আগে বক্তৃতা করেন, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আবুল কালাম আজাদ, গোলাম মোস্তফা বাচ্চু, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রকিব জুয়েল, সহ-সভাপতি জুয়েল আহমদ, সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমদ। এছাড়া সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

এদিকে বিএনপি থেকে বহিস্কৃত সাবেক এমপি শফি আহমদ চৌধুরী গণসংযোগ করেছেন মোগলাবাজার এলাকায়। স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী শফি আহমদ চৌধুরী এক পথসভায় বলেন, বিগত ১৩ বৎসর দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ এবং বালাগঞ্জবাসীর কাংক্ষিত কোন উন্নয়ন হয়নি। জনদূর্ভোগ লাঘবে দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন চোখে পড়ে না। মাত্র ৫ বছর সংসদ সদস্য থাকাকালে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা বাস্তবায়নসহ এই অঞ্চলের মানুষের জন্য যা করেছি, তার স্বাক্ষী আপনারা। প্রতিটি স্কুল কলেজের দ্বিতল ভবন নির্মাণ করে দিয়েছি। যেখানে রাস্তা ছিল না সেখানে রাস্তা করেছি। ব্যক্তিগত এবং সরকারি উদ্যোগে হাসপাতাল নির্মাণ করে দিয়েছি, যেখান থেকে সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্য সেবা পায়। শফি চৌধুরী আরও বলেন, কে কি করলো, সেদিকে আমার কোন দৃষ্টি নাই। আমার দু’জন প্রতিদ্ব›িদ্ব রয়েছেন। তারা এই অঞ্চলের মানুষের জন্য কি করেছেন তা বিবেচনার দায়িত্ব আপনাদের। জীবনের এ শেষ বয়সে এসে দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ এবং বালাগঞ্জের ঘরে ঘরে গ্যাস পৌছে দেওয়ার স্বপ্ন নিয়ে নির্বাচনে দাঁড়িয়েছি। আগামী ২৮ জুলাই বুধবার আপনাদের পবিত্র আমানত নিয়ে যদি নির্বাচিত হতে পারি ইনশাআল্লাহ এই দাবি পূরণ করে ছাড়বো। কারন ব্যক্তি শফি চৌধুরীকে দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ এবং বালাগঞ্জ ভালো করে জানেন এবং চিনেন। তিনি একটি অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি উদাত্ত আহŸান জানান। গণসংযোগকালে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী ও পুলিশের বিরুদ্ধে হুমকি প্রদানের অভিযোগ তুলেছেন সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিক। রবিবার দুপুরে দক্ষিণ সুরমাস্থ দলের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন- নির্বাচনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে পুলিশ তার কর্মীদের ধরপাকড় শুরু করেছে, কেন্দ্রে না যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও মাঠ পর্যায়ে প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে, নির্বাচনী পোস্টার ছিঁড়ে ফেলছে।

এসময় তিনি হুমকি প্রদানকারী পুলিশ কর্মকর্তাদেরকে শাস্তির আওতায় আনতে নির্বাচন কমিশন ও আইজিপির প্রতি দাবি জানান। পাশাপাশি তিনি এসব ব্যাপারে র‌্যাবসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আতিক বলেন- প্রতিপক্ষ জুলুম নির্যাতন করলেও মানুষের ভোটের অধিকারের জন্যই তিনি লড়াই করছেন। তিনি বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হলে সরকার ও ইসিরই সুনাম হবে উল্লেখ তিনি নির্বাচনের কমিশনের প্রতি একটি অবাদ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি জানান। এসময় তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য হাজি তোফায়েল আহমদ, জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক কুনু মিয়া, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য আহসান হাবিব মঈন, জাতীয় পার্টি নেতা বাশির আহমদ প্রমুখ। 

গত ১১ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেট-৩ আসনের আওয়ামী লীগের সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী মারা যান। দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ নিয়ে গঠিত সিলেট-৩ আসনে ২৮ জুলাই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হাবিবুর রহমান (নৌকা), জাতীয় পার্টির আতিকুর রহমান (লাঙ্গল), বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক সাংসদ শফি আহমদ চৌধুরী (মোটরগাড়ি) এবং বাংলাদেশ কংগ্রেসের জুনায়েদ মুহাম্মদ মিয়া (ডাব) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বিএনপি এই নির্বাচন বর্জন করেছে।

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জুলাই / ২৫ / ২০২১
০৯:১৪ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১
০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

সিলেট