সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১ ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

সৈয়দ হেলাল আহমদ বাদশা, গোয়াইনঘাট

জুলাই / ২৫ / ২০২১
০৫:১৮ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১
০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

লকডাউনের তৃতীয় দিনে পর্যটকশূন্য জাফলং

বেড়েছে যান চলাচল



81

Shares

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় সরকারঘোষিত ঈদ পরবর্তী কঠোর লকডাউনের প্রথম দিনেই গোয়াইনঘাট উপাজেলার জাফলং পর্যটন কেন্দ্রে বিভিন্ন জায়গা থেকে পর্যটকরা এসে ভিড় জমায়। এদিকে লকডাউন বাস্তবায়নে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় পর্যটকশূন্য রাখতে কঠোর অবস্থানে রয়েছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।  ট্যুরিস্ট পুলিশ জাফলং সাব-জোনের ইনচার্জ ইউনিটের ওসি রতন শেখের নেতৃত্বে ট্যুরিস্ট পুলিশ সদস্যরা কঠোর পরিশ্রম করে লকডাউনের তৃতীয় দিনে এসে জাফলং পর্যটকশূন্য করতে সক্ষম হয়। তারা লকডাউন বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, রবিবার (২৫ জুলাই)  ঈদ পরবর্তী লকডাউনে অন্যান্য দিনের তুলনায়  কিছুটা বেড়েছে যানবাহন ও মানুষের চলাচল। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে  দেখা গেছে, সিএনজি’র পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য ইমা-লেগুনা গাড়ি চলছে। তবে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াতরত যাত্রীদেরকে বাড়তি ভাড়ার ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
তবে একান্ত জরুরি প্রয়োজনে যারা ঘর থেকে বের হচ্ছে, বিভিন্ন জায়গায় টহলরত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তাদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জরুরি কাজ সেরে নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। রোগীদের বেলায় হাতে থাকা প্রেসক্রিপশন দেখামাত্রই তাদের যাতায়াতে কোনো বাধা প্রদান করা হচ্ছে না। অনেকে আবার এই সুযোগের অসৎ ব্যবহার করছে এমনও দেখা গেছে। কিন্তু আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বুঝে গেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থাসহ দ্বিগুণ জরিমানা করা হচ্ছে।
লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। লকডাউন বাস্তবায়ন ও বিধিনিষেধ ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব, বিজিবি ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন। তারা লকডাউন বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।
সিলেটসহ দেশের সবক’টি পর্যটন স্পট বন্ধ রাখার ঘোষণা থাকলেও ঈদের ছুটিতে গোয়াইনঘাটের জাফলংসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটে ভিড় করছিলেন দর্শনার্থীরা। এমন পরিস্থিতিতে সিলেটের পর্যটন স্পটগুলোতে পর্যটকদের প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ।
করোনাভাইরাস সংক্রমণ বিষয়ে সচেতন করে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর গত বৃহস্পতিবার  সকাল থেকে জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ ও থানা পুলিশের সমন্বয়ে জাফলংয়ের বিভিন্ন প্রবেশমুখে গুচ্ছগ্রাম, নলজুড়ি এবং জিরো পয়েন্টে অস্থায়ী তল্লাশি চৌকি বসিয়ে পর্যটকবাহী যানবাহন বাস, মাইক্রোবাস, কার, পিকআপ ও মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে তাদের বুঝিয়ে ফেরত পাঠানো হয়। রবিবার পর্যটন কেন্দ্র জাফলংয়ে লোক সমাগম নেই বললেই চলে। যে স্থানে পর্যটক এসে হইহুল্লোড় করে আনন্দ করত সে স্থানে পর্যটক নেই।
জাফলং টুরিস্ট পুলিশের ইনচার্জ ইউনিটের (ওসি) রতন শেখ বলেন, ঈদ পরবর্তী লকডাউনে জাফলং পর্যটন কেন্দ্রে প্রচুর পর্যটকরা এসে ভিড় জমায়। আমরা কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রথমে তাদেরকে বুঝিয়েছি। পর্যটন কেন্দ্রে না আসার জন্য  পর্যটকদের নিরুৎসাহিত করেছি। সবকিছু মিলিয়ে টুরিস্ট পুলিশ সদস্য, বিজিবি ও থানা পুলিশের সমন্বয়ে আজ আমরা জাফলং পর্যটন কেন্দ্রকে পর্যটকশূন্য করতে পেরেছি।

সৈয়দ হেলাল আহমদ বাদশা, গোয়াইনঘাট

জুলাই / ২৫ / ২০২১
০৫:১৮ অপরাহ্ন

আপডেট : সেপ্টেম্বর / ২৬ / ২০২১
০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

সিলেট