জুন / ২৬ / ২০২২ ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

মে / ১৮ / ২০২২
০১:০৭ অপরাহ্ন

আপডেট : জুন / ২৬ / ২০২২
০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

বন্যায় বিপর্যস্ত সিলেটের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা

বিদ্যুতহীনতা দুর্ভোগ আরও বাড়িয়েছে



67

Shares

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে আরও অনেক এলাকা। পূর্ব থেকেই প্লাবিত হওয়া এলাকায় পানি আরও বেড়েছে। এদিকে বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সিলেটের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। দক্ষিণ সুরমা, উপশহরসহ কয়েকটি এলাকার বিদ্যুতের সাব স্টেশন পানিতে তলিতে গেছে। ফলে এসব এলাকায় মঙ্গলবার থেকে বন্ধ রয়েছে বিদ্যুৎ সরবরাহ।  বন্যায় প্লাবিত এলাকায় গত কয়েকদিন যাবত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকায় এসব এলাকার বাসিন্দারা পানি বন্দি অবস্থায় থাকলেও সুপেয় পানির অভাবে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। অনেকের বাসায় পানি না উঠলেও বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিন কাটছে।

এছাড়া বাড়িঘরে পানি উঠে যাওয়ায় কানাইঘাট, জকিগঞ্জ, কোম্পানিগঞ্জ, জৈন্তাপুর, সদর ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার বেশিরভাগ এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল কাদির।

তিনি বলেন, কিছু জায়গায় সাব স্টেশনের যন্ত্রপাতি পানিতে তলিয়ে গেছে। আবার অনেক জায়গার বাসা বাড়ির মিটার পর্যন্ত ডুবে গেছে। একারণে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ আছে। পানি না কমলে এটি স্বাভাবিক হবে না। পানিতে ঘরবাড়ি তলিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি বিদ্যুতহীনতা পানিবন্দি মানুষের দুর্ভোগ আরও বাড়িয়েছে।

নগরের দক্ষিণ সুরমার বরইকান্দি এলাকার বাসিন্দা সম্রাট আহমদ বলেন, একে তো ঘরে পানিতে আটকে আছি। তার উপর বিদ্যুৎ নেই। মোবাইল ফোনও চার্জ দিতে পারছি না। ফলে জরুরি প্রয়োজনেও কারো সাথে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।

বিদ্যুৎহীনতার সাথেসাথে মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট সেবায়ও বিপর্যয় দেখা দিয়েছে সিলেটে। সব মিলিয়ে বন্যা কবলিত মানুষের দুর্ভোগ আরও বেড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, সিলেটে চতুর্থ দিনের মতো সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমাও ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আজ কানাইঘাট ৬ সেন্টিমিটার কমলেও সিলেটে বেড়েছে ২ সেন্টিমিটার। নগরে ও গ্রামে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

সিলেট নগরের মাছিমপুর এলাকার বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন বলেন, তিনদিন ধরে ঘরে পানি। পানির কারণে ঘর থেকেও বের হওয়া যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, খাবারের কোন সংকট না থাকলেও সবচেয়ে সমস্যা হচ্ছে বাথরুম ব্যবহারে। বিশেষত নারী ও শিশুরা সবচেয়ে সমস্যায় পড়েছেন।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বন্যার্তদের জন্য সিলেট জেলায় ১৯৯টি ও নগরে ২টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। তবে আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে উঠতে তেমন আগ্রহ নেই মানুষজনের।

বন্যায় বিভিন্ন উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তলিয়ে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে পড়েছে শিক্ষা কার্যক্রম।

এদিকে আজ বন্য কবলিত এলাকা পরিদর্শনে আসবেন সিলেট-১ আসনের সাংসদ ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড একে আবুল মোমেন। বেলা ১ টায় সিলেট আসার কথা রয়েছে তার। পরিদর্শনকালে বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণও বিতরণ করবেন তিনি।

বন্যা কবলিতদের জন্য নগরের কিশোরী মোহন ও মাছিমপুর বিদ্যালয়ে আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নুর আজিজুর রহমান।

এদিকে বন্যায় প্লাবিত হয়ে পড়া পাঁচ উপজেলা সদর, কানাইঘাট, কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জকিগঞ্জ ও জৈন্তাপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। প্লাবিত হয়েছে নতুন নতুন এলাকা। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে দক্ষিণ সুরমা ও ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের উপ সহকারী প্রকৌশলী নিলয় পাশা বলেন, উজানে বৃষ্টি না থামলে পানি কমার কোন সম্ভাবনা নেই।

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

মে / ১৮ / ২০২২
০১:০৭ অপরাহ্ন

আপডেট : জুন / ২৬ / ২০২২
০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

সিলেট