মে / ০৭ / ২০২১ ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মে / ০৩ / ২০২১
০৮:০৭ পূর্বাহ্ন

আপডেট : মে / ০৭ / ২০২১
১১:০৩ পূর্বাহ্ন

আনুষ্ঠানিকভাবে আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু যুক্তরাষ্ট্রের


মার্কিন সেনা

17

Shares

আনুষ্ঠানিকভাবে গত শনিবার (১মে) যুদ্ধবিধ্বস্ত রাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোট । মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ভাষ্যে' এর মাধ্যমে একটি অন্তহীন যুদ্ধ শেষ হওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হলো।'

গত ২০ বছর ধরে আফগানিস্তানে সামরিক উপস্থিতি বজায় রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোটের সেনাবাহিনী। নির্ধারণ হয়েছে  এই বছরের সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখ পর্যন্ত সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়া চলবে। এই সেনা প্রত্যাহার শুরু হল এমন এক সময়ে যখন দেশটিতে নতুন করে সংঘর্ষ বাড়তে শুরু করেছে। 

উল্লেখ্য, গত বছর সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তালেবানের এক চুক্তি অনুযায়ী এ বছর মে মাসের এক তারিখের মধ্যে সেনা প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখ পর্যন্ত আফগানিস্তানে সেনা উপস্থিতি থাকা প্রয়োজন মনে করায় গত মাসে এই সময়সীমা পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এ বছর  নাইন ইলেভেন হামলার ২০ বছর পূর্তিতে নিরাপত্তা হুমকির কথা মাথায় রেখে সেনা প্রত্যাহার সম্পন্ন করার তারিখ বর্ধিত করা হয়।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তালেবানের চুক্তি অনুযায়ী অনুযায়ী, আন্তর্জাতিক সেনাদের উপরে এই সময়ে হামলা বন্ধ রাখতে হবে তালিবান বাহিনীকে। একই চুক্তির আওতায় আফগানিস্তানের অন্য যোদ্ধাদের হামলা থেকে পশ্চিমা সেনাদের সুরক্ষা দিয়ে আসছে তালেবান বাহিনী। যদিও আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর উপর তালেবান যোদ্ধাদের হামলা বন্ধ হয়নি।

সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের সময়ে কোনো ধরনের আক্রমণের ব্যাপারে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মার্কিন জেনারেল স্কট মিলার। তিনি বলেছেন, ভুলে যাবেন না, যে কোন ধরনের আক্রমণের জবাব দেবার এবং আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর উপরে আক্রমণে তাদের সহায়তায় সামরিক সক্ষমতা জোটের রয়েছে।

অন্য দিকে চুক্তি স্বত্বেও তারিখ পিছিয়ে দেওয়া সম্পর্কে তালেবান নেতাদের একজন মুখপাত্র রয়টার্সকে   বলেছেন, চুক্তির সময়সীমা লঙ্ঘন দখলদার বাহিনীর (পশ্চিমা সেনা) উপর তালেবান যোদ্ধাদের যেকোনো ধরনের পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার নীতিগত সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। তবে কোন ধরনের আক্রমণে যাওয়ার আগে তালেবান যোদ্ধারা তাদের নেতাদের নির্দেশের অপেক্ষা করবে। 

আন্তর্জাতিক