০৪ মার্চ ২০২১ ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন     |    ই-পেপার     |     English
০৪ মার্চ ২০২১   |  ই-পেপার   |   English
বায়মপুরীর কবরস্থান পূর্বাবস্থায় স্থাপনের দাবীতে কানাইঘাটে সভা
বায়মপুরীর কবরস্থান পূর্বাবস্থায় স্থাপনের দাবীতে কানাইঘাটে সভা

কানাইঘাট প্রতিনিধি

ফেব্রুয়ারী ২০, ২০২১ ০৮:০০ পিএম



কানাইঘাট দারুল উলূম মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে শায়িত উপ-মহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রহ. এর কবরের পাকা দেওয়াল গুড়িয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে এবং কবরটি পাকা দেওয়াল পূর্বের অবস্থায় স্থাপনের দাবীতে আল্লামা মুশাহিদ রহ. স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে এক প্রতিবাদ ও পরামর্শ সভা শনিবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট পূর্ব বাজারে অনুষ্ঠিত হয়।

দারুল উলূম মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাওলানা ইসমাইল আলীর সভাপতিত্বে এতে মুশাহিদ বায়মপুরীর অনুসারী, দারুল উলূম মাদ্রাসার শুভাকাংখী ও বিভিন্ন পরগনার লোকজনদের উপুস্থিতিতে সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ¦ আব্দুল কাহির চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, সহ-সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা জামাল উদ্দিন, পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাবেক মেয়র প্রার্থী হাজী শরীফুল হক, বিশিষ্ট মুরব্বী ইজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরীর সাহেবজাদা মাওলানা ফরিদ আহমদ, মাওলানা জামিল আহমদ, মাওলানা জাকারিয়া, মুফতি মাওলানা ছয়ফুল আলা সহ আরো অনেকে।

সভায় বক্তারা বলেন, দারুল উলূম মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ বিভিন্ন ধর্মীয় গ্রন্থের লেখক ও  পাকিস্থান জাতীয় পরিষদের সাবেক পার্লামেন্টরিয়ান আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রহ. সর্বজন শ্রদ্বেয় একজন আলেম ছিলেন। কানাইঘাট তথা সারাদেশে হুজুরের লক্ষ লক্ষ ভক্তবৃন্দ রয়েছেন। ১৯৭১ সনের ৭ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যাওয়ার পর দারুল উলূম মাদ্রাসায় তাকে সায়িত করা হয়। সে সময় থেকে তার কবরস্থান পাকা করণ করা হয় এরপর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ও সরকারি উদ্যোগে তার কবরস্থানকে বিশেষ মর্যাদা দিয়ে বাউন্ডারী দেওয়া সহ টাইলস দ্বারা সজ্জিত করা হয়। ঐতিহাসিক স্থান হিসাবে বায়মপুরীর কবর বিভিন্ন গ্রন্থ, পত্র-পত্রিকা ও পুস্তিকায় স্থান পেয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, গত ১৩ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে মাদ্রাসা সকল পরিচালনা কমিটি ও মাদ্রাসার মুহতামিম মুহাম্মদ বিন ইদ্রিস লক্ষীপুরী সহ বায়মুরীর পরিবার সহ এলাকাবাসীকে অবহিত না করে তার কবরের চারিদিকের পাকা দেওয়াল গুড়িয়ে দেওয়া হয়। এতে করে মুশাহিদ বায়মপুরীর এলাকার লোকজন সহ তার বক্ত অনুসারী ও মাদ্রাসার শুভাকাংখিদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।

আগামী বুধবার মাদ্রাসার বার্ষিক জলছার পূর্বে আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরীর কবরস্থান পূর্বের মতো পাকা দেওয়াল স্থাপনের দাবী জানানো হয় সভা থেকে। সভায় মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাওলানা ইসমাইল আলী সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন বায়মপুরীর কবরস্থান পাকা দেওয়াল ভেঙ্গে ফেলা নিয়ে যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে তা সমাধান করার আশ^াস প্রদান করেন তিনি। সভা শেষে বিষয়টি মিমাংসার লক্ষ্যে ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। প্রসঙ্গত যে, মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ বলছেন আলোচনা সাপেক্ষে বায়মপুরী সহ মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে সায়িত আরো কয়েকজন আলেমের পূর্বের কবরে পাকা দেওয়াল ভেঙ্গে কবরস্থানগুলো সংস্কার ও সুরক্ষার উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে।  

ডি/আর/ডি