মে / ১৮ / ২০২২ ০২:৫৬ অপরাহ্ন

লিটন সরকার

সেপ্টেম্বর / ২৪ / ২০২০
১২:১৬ পূর্বাহ্ন

আপডেট : মে / ১৮ / ২০২২
০২:৫৬ অপরাহ্ন

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তৃণমূলের খোলা চিঠি


লেখক: লিটন সরকার

522

Shares

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তৃণমূলের খোলা চিঠি

 আদাব নিবেন। 

দেশের অকাল বন্যার ও করোনা পরিস্থিতিতে আপনার নির্দেশে দলীয় নেতাকর্মীরা মৃত্যুভয় উপেক্ষা করে জনগনের পাশে থেকেছে। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা  আপনার নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করে। আপনার নেতৃত্বে বরাবরেই আওয়ামী লীগ শোকের মাসের পর দলীয় কার্যক্রম জোরালো ভাবে শুরু করে। যাতে তৃণমূল আশান্বিত হয়। আপনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম বৈঠকের পর ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং দৈনিক কালের কলরব পত্রিকায় ‘স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সতর্ক আওয়ামী লীগ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়।  যাতে প্রকাশ হয় ইউনিয়ন উপজেলা ও জেলার সভাপতির স্বাক্ষরিত/প্রস্তাবিত নাম ব্যতিত স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় কোন ফরম বিক্রি করা হবে না। যা ইউনিয়ন ও উপজেলায় প্রযোজ্য।

জনগন দেখেছে এই সংবাদের সত্যতা ধরে ইউনিয়ন উপজেলা জেলার তৃনমূলের সমর্থনে দলীয় গঠনতন্ত্র মেনে স্থানীয় নির্বাচনে প্রার্থীর প্রস্তাবিত নাম উপজেলার সভাপতি, সাধারন সম্পাদক স্বাক্ষরিত চিঠি প্রথমে যায় জেলায়। তারপর জেলা আওয়ামীলিগ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রার্থীর নাম প্রস্তাব করে কেন্দ্র পাঠান।

কিন্তু দু:খের বিষয় কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত উপক্ষো করে স্থানীয় নির্বাচনে এমপিদের ডিও লেটারেও দলীয় মনোয়ন সংগ্রহ করেন নৌকা প্রতীক প্রত্যাশীরা। দলের নেতারা বলেন নিয়মের বাইরে মনোয়নয় ফরম বিক্রি হয়নি।

কিন্তু দলের নিয়ম মানতে রাজী হয়নি একাধিক মন্ত্রী এমপি। কারন তারা তাদের প্যাডে নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিদের মনোনয়র ফরম দেওয়ার জন্য ডিও লেটার দেন। যা প্রকাশ হয় গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ দৈনিক মানবজমিন পত্রিকায়। মন্ত্রী এমপিদের এমন ভূমিকা দলীয় বিভেদকে উস্কে দিবে নি:সন্দেহে।

আবার নির্দেশ দিলেন দলীয় প্রার্থীর বাইরে গেলে সাংগাঠনিক শাস্তির ব্যবস্থা। যা প্রকাশ হয় গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ দৈনিক মানবজমিন পত্রিকায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার কাছে প্রশ্ন ডিও লেটারে মনোয়নন ফরম কেনা হয়।

তৃনমূল কি ডিও লেটারে চলে। ডিও লেটারেই যদি প্রার্থী নির্বাচন করতে হয় তাহলে সভা সমাবেশের নামে রাষ্ট্রের অর্থ ও সাধারন জনগনের সময়ের অপচয় কেন? মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চাই জেলা উপজেলা কমিটি গুলোও কি ডিও লেটারে হতে পারে তাহার সম্ভাবনা কতটুকু। ডিও লেটারের আওয়ামী লীগ নিয়েই কি ২১ বৎসর বিরোধী দলে ছিলেন। দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগ করে জেল জুলুম সহ্য করে যারা রাজপথে ছিল সেই সব বর্ষীয়ান নেতাদেরকে কি ডিও লেটারেই ইকোনা বলপেনের মতো ছুড়ে ফেলবেন?  

জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ‘বাতিঘর’ চোখের সামনে নিভে গেলো। তৃনমূলের সিদ্ধান্তকে ঝুড়িতে ফেলে দেওয়ার পরও ডিও লেটার ভীতিতে একজন নেতাকর্মীরও তাদের উপক্ষোর কথা জানাতে পারলো না। ডিও লেটারের রাজনীতি সুফল না কুফল বা কতদিন চলবে হয়ত বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীই ভালো জানেন। তৃনমূলকে যদি উপক্ষোই করা হয় বা ডিও লেটারই আওয়ামী লীগ চলে তাহলে বিভিন্ন আশার বানী শুনিয়ে তৃনমূলকে বিপদে ফেলার প্রয়োজন কি। পরিশেষে জাতির পিতার স্বপ্ন বিনির্মানে কোটি কোটি মানুষের প্রহরী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি। 

লিটন সরকার, উপজেলা আওয়ামীলীগ, জামালগঞ্জ , সুনামগঞ্জ।

 

 

লিটন সরকার

সেপ্টেম্বর / ২৪ / ২০২০
১২:১৬ পূর্বাহ্ন

আপডেট : মে / ১৮ / ২০২২
০২:৫৬ অপরাহ্ন

পাঠকের কথা